Facebook
 
 

অর্থের অবচয় এবং ১৯৭০ এর দশকে বিলুপ্ত হওয়া স্বর্ণ মানে আবার ফিরে যাওয়ার সম্ভাব্য বিষয়টি সত্যি আলোচিত বিষয়। বিশেষজ্ঞগণ আপাতদৃষ্টিতে এর অসুবিধার কথা ভুলে একটি ভারসাম্যপূর্ণ স্বর্ণ ভিত্তিক আর্থিক ব্যবস্থার কথা বলছে। এর অন্যতম একটি অসুবিধা হল এর কোন বৈদেশিক বিনিময় বাজার থাকবে না। যাহোক, স্বর্ণ মান ধ্বসে পড়ার কারনেই ফরেক্সের উদ্ভব হয়েছে।

পার্থক্য অনুভর করুন

ফরেক্স হচ্ছে একটি স্বল্প-মেয়াদী ট্রেডিং মার্কেট, যেখানে একজন ব্যবসায়ী মূল্য হারের ওঠানামার উপর ভিত্তি করে মুনাফা অর্জন করে। ফরেক্সে একটি ব্যবসার সর্বোচ্চ সময়সীমা হচ্ছে কয়েক মাস, যেখানে স্টক মার্কেটে এটা ৫-৭ বছর পর্যন্ত থাকতে পারে।

বৈদেশিক বিনিময় বাজার হচ্ছে বিকেন্দ্রীভুত। বিভিন্ন ব্যাংক ভিন্ন ভিন্ন সফটওয়্যার ব্যবহার করে এখানে ব্যবসা করে। বেশিরভাগ সাধারণ মানুষ স্বাভাবিকভাবেই আন্তঃব্যাংক ফরেক্স মার্কেটে প্রবেশ করতে পারে না, কারন এখানে আদর্শ ট্রেড পরিমান $১০০,০০০ থেকে $১ মিলিয়ন। একটি ট্রেডিং সেন্টার ব্যাংক এবং একজন ব্যবসায়ীর মদ্ধবর্তী হিসেবে কাজ করে।

সকল বৈদেশিক মুদ্রার দাম মার্কিন ডলারে নির্ধারণ করা হয়। ডটের পর প্রত্যেক কোটের চারটি অঙ্ক রয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, ইউরো/ইউএসডি কোট দেখতে এমন হয়: ১.২৮৩৬। কোটের একটি আদর্শ পরিবর্তন হল চতুর্থ অঙ্কে ১ টিক পরিবর্তন হওয়া।

১.২৮৩৬ কোট এর অর্থ হচ্ছে ১০০,০০০ ইউরো ক্রয় করার জন্য ১২৮,৩৬০ মার্কিন ডলার খরচ করতে হবে। যদি মূল্য এক ক্লিক পরিবর্তন হয় তাহলে গ্রাহককে ১২৮,৩৭০ মার্কিন ডলার খরচ করতে হবে, অর্থাৎ ১০ মার্কিন ডলার বেশি খরচ করতে হবে।

আধুনিক প্রযুক্তির কারনে, ডটের পর পাঁচ অংক সমৃদ্ধ আরও বেশি সঠিক কোট ব্যবহার করা হচ্ছে, যা মার্কেটে প্রবেশ করার সময় ভুল হওয়ার সম্ভাবনা হ্রাস করে। ইন্সটাফরেক্স গ্রাহকগণ চার অংক এবং পাঁচ অংক বিশিষ্ট উভয় কোটের সাথে কাজ করার সুযোগ পাচ্ছে।

ডাইরেক্ট এবং ইনডাইরেক্ট কোট। ক্রোস রেট।

বৈদেশিক মুদ্রার হার কোট করা হয় মার্কিন ডলারে। যাহোক, কিছু ট্রেডিং টার্মিনালে ডাইরেক্ট, ইনডাইরেক্ট, এমনকি ক্রোস রেট অন্তর্ভূক্ত করে। ডাইরেক্ট কোট হচ্ছে বৈদেশিক মুদ্রার বিনিময় হার যা কোট করা হয় প্রতি মার্কিন ডলারের বিপরীতে জাতীয় মুদ্রায়। এগুলোর একটি বৈদেশিক মুদ্রার ট্রেডিং সংকেত রয়েছে যা লব আকারে এবং মার্কিন ডলার হর আকারে থাকে।

ইউরো/ইউএসডি মুদ্রা জোড়ার মান কোট করা হয় ১ ইউরোর বিপরীতে মার্কিন ডলারে। এর অর্থ এক ইউরো ক্রয় করার জন্য কত মার্কিন ডলার খরচ করতে হবে। এটা হচ্ছে ডাইরেক্ট কোট। ডাইরেক্ট কোটের অন্যান্য উদাহরণগুলো হল জিবিপি/ইউএসডি (ব্রিটিশ পাউন্ডের বিপরীতে মার্কিন ডলার), এইউডি/ইউএসডি(মার্কিন ডলারের বিপরীতে অস্ট্রেলিয়ান ডলার), এবং এনজেডডি/ইউএসডি (নিউজিল্যান্ড ডলারের বিপরীতে মার্কিন ডলার)। এমন মুদ্রা জোড়া ক্রয় করার সময় ব্যবসায়ীরা বৈদেশিক মুদ্রা ক্রয় করে এবং মার্কিন ডলার বিক্রি করে। যখন সে বিক্রি করে তখন বৈদেশিক মুদ্রা বিক্রি করে এবং মার্কিন ডলার ক্রয় করে।

ইনডাইরেক্ট কোট হচ্ছে বৈদেশিক মুদ্রার ভিত্তিতে মার্কিন ডলারের হার। এর লব হচ্ছে মার্কিন ডলারের সংকেত, এবং এর হর হচ্ছে বৈদেশিক মুদ্রার সংকেত। উদাহরণস্বরূপ, ইউএসডি/সিএডি হচ্ছে কানাডিয়ান ডলারে মার্কিন ডলারের কোট যা প্রদর্শন করে এক মার্কিন ডলারের জন্য কত কানাডিয়ান ডলার খরচ করা হবে। ইউএসডি/জেপিওয়াই (মার্কিন ডলারের বিপরীতে জাপানি ইয়েন), ইউএসডি/এসইকে (মার্কিন ডলারের বিপরীতে সুইডিশ ক্রোনা), এবং ইউএসডি/সিএইচএফ (মার্কিন ডলারের বিপরীতে সুইস ফ্রাঙ্ক) হল ইনডাইরেক্ট মুদ্রা জোড়ার আরও কয়েকটি উদারহণ। এ ধরণের মুদ্রা জোড়া ক্রয় করার অর্থ হচ্ছে ক্রেতা মার্কিন ডলার ক্রয় করে এবং বৈদেশিক মুদ্রা বিক্রয় করে। এবং এর বিপরীতে, সে মার্কিন ডলার বিক্রয় করে এবং বৈদেশিক মুদ্রা ক্রয় করে।

ক্রস রেট হল একটি বৈদেশিক মুদ্রার বিপক্ষে অন্য একটি বৈদেশিক মুদ্রার হার। সকল বৈদেশিক মুদ্রা মার্কিন ডলারে কোট করা হয়, যেখানে ক্রস রেট মার্কিন ডলার হারের প্রিজমের মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা হারের কোট প্রদর্শন করে। সবচেয়ে জনপ্রিয় ক্রস রেট হিসেবে ধরা হয় জাপানি ইয়েন এবং সুইস ফ্রাঙ্ক: ইউরো/জেপিওয়াই (জাপানি ইয়েনে নির্ধারিত ইউরো কোট), জিবিপি/জেপিওয়াই (জাপানি ইয়েনে নির্ধারিত ব্রিটিশ পাউন্ড কোট), সিএইচএফ/জেপিওয়াই (জাপানি ইয়েনে নির্ধারিত সুইস ফ্রাঙ্ক কোট), জিবিপি/সিএইচএফ (সুইস ফ্রাঙ্কে নির্ধারিত ব্রিটিশ পাউন্ড কোট), এবং ইউরো/সিএইচএফ (সুইস ফ্রাঙ্কে নির্ধারিত ইউরো কোট)।

২০১১ সালে সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক প্রতি ইউরোর বিপরীতে ১.২০ সুইস ফ্রাঙ্ক নির্ধারণ করে। এর ফলে, ফ্রাঙ্ক মার্কেট সংকুচিত হয়, যা সুইস ন্যাশনাল ব্যাংকে দাপটে থাকা বৈদেশিক মুদ্রার হারে প্রতিফলিত হয়।

ক্রোস রেট নিন্মোক্ত সূত্রের ভিত্তিতে হিসেব করা হয়:

ফর/ফর = ফর/ইউএসডি * ইউএসডি/ফর, এখানে ফর হচ্ছে বৈদেশিক মুদ্রা।

মেজর, কমোডিটি মুদ্রা, এবং মার্কিন ডলার ইনডেক্স

বিভিন্ন দেশের আন্তর্জাতিক রিজার্ভে প্রধান মুদ্রাসমূহ হল মার্কিন ডলার, ইউরো, ব্রিটিশ পাউন্ড ও জাপানি ইয়েন। এই চারটি মুদ্রাকে বলা হয় মেজর।

কানাডিয়ান ডলার (সিএডি) এবং অস্ট্রেলিয়ান ডলার (এইউডি) হচ্ছে শক্তিশালী মুদ্রা, কিন্তু তাদের প্রবাহ সীমিত। এগুলোকে কমোডিটি মুদ্রা বলা হয় কারন এগুলোর হার কাঁচামালের দামের উপর নির্ভরশীল। নিউজিল্যান্ড ডলার এই গ্রুপের উপর নির্ভরশীল।

রাশিয়ান রুবল (আরইউআর), সুইডিশ ক্রোনা (এসইকে), নরওয়েজিয়ান ক্রোন (এনওকে), ডেনিশ ক্রোন (ডিকেকে), সিঙ্গাপুর ডলার (এসজিডি), তুর্কি লিরা (টিআরওয়াই), ভারতীয় রূপি(আইএনআর), দক্ষিন আফ্রিকান র‍্যান্ড (জেডএআর), দক্ষিন কোরিয়ার ওন (কেআরডব্লিউ), এবং পোলিশ জোতি (পিএলএন)- এগুলোকে স্থিতিস্থাপক মুদ্রা হিসেবে বিবেচনা করা হয়, কিন্তু এদের প্রবাহ অঞ্চল ভিত্তিক।

পিপলস ব্যাংক অফ চীন কর্তৃক নির্ধারিত হারের চীনা ইউয়ান (সিএনওয়াই) অবাধে বিনিময়যোগ্য মুদ্রা নয়।

বৈদেশিক মুদ্রাগুলোর বিপক্ষে মার্কিন ডলার সূচক গ্রিনব্যাক হার প্রতিফলিত করে। কয়েক ধরণের মার্কিন ডলার সূচক রয়েছে যা হিসাব করা হয় বিভিন্ন সূত্রের মাধ্যমে। ক্লাসিক মার্কিন ডলার সূচক ছয়টি প্রধান মুদ্রার বিপক্ষে গ্রিনব্যাকের অবস্থান প্রদর্শন করে, এগুলো হল ইউরো, জাপানি ইয়েন, ব্রিটিশ পাউন্ড, কানাডিয়ান ডলার, সুইডিশ ক্রোনা এবং সুইস ফ্রাঙ্ক। ১৯৭৩ থেকে মার্কিন ডলারের মূল্য ১০০% ধরা হয়। ইন্সটাফরেক্স কর্তৃক প্রস্তাবিত মুদ্রা জোড়া সম্পর্কে আরও জানার জন্য দয়া করে কোম্পানির ওয়েবসাইটের কন্ট্রাক্ট স্পেসিফিকেশন শাখায় যান।

ইন্সটাফরেক্স পরামর্শ:
নবাগতদের মনোযোগী হওয়া উচিত মেজর এবং কমোডিটি মুদ্রাগুলোর উপর। আপনি ক্রমান্বয়ে অভিজ্ঞ হওয়ার সাথে সাথে ক্রস এবং অপেক্ষাকৃত কম জনপ্রিয় মুদ্রাগুলোর সাথে কাজ করা শুরু করতে পারেন, কারন ক্রস হার নির্ধারণ একটি জটিল প্রক্রিয়া এবং কম জনপ্রিয় মুদ্রাগুলোর স্প্রেড বেশি। মনে রাখবেন যে মুদ্রা ট্রেডিং সবচেয়ে বেশি সক্রিয় থাকে ইউরোপিয়ান এবং আমেরিকান সেশনে, অর্থাৎ ১২:০০ থেকে ০০:০০ (ইউটিসি+৪)।

লিভারেজ

ফরেক্স হচ্ছে কোট সামান্য পরিবর্তিত হওয়ার মার্কেট। সাপ্তাহিক ওঠানামার ব্যাপ্তি ০.৫-২% এর মধ্যে থাকে, যা লিভারেজকে খুব সুবিধাজনক করে। যেসব লেনদেন কেন্দ্র আন্তঃব্যাংক বৈদেশিক বিনিময় বাজার থেকে কোট গ্রহণ করে তারা ১:১-১:৫০০ লিভারেজ প্রয়োগ করার জন্য প্রস্তাব করে।

ফরেক্সের একটি আদর্শ লিভারেজ হচ্ছে ১:১০০, যা একজন গ্রাহককে সর্বোচ্চ $১০০,০০০ এর একটি দীর্ঘ অথবা স্বল্প পরিশন খুলতে অনুমোদিত করে। এটা কি বড় অথবা ছোট পরিমান নয়? প্রতি ২৪ ঘণ্টায় ইউরো/ইউএসডি জোড়ার কোট ১০০ টিক পরিবর্তিত হতে পারে। সুতরাং, আপনি যদি ১:১০০ লিভারেজে এই মুদ্রার জোড়ার ট্রেড করেন, তাহলে আপনি এক দিনে $১,০০০ মুনাফা অর্জন করতে পারেন অথবা ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারেন। ঝুঁকি কমানোর জন্য আপনি লিভারেজের পরিমান কমাতে পারেন অথবা আপনার খোলা পরিজশনের ভলিউম কমাতে পারেন।

ইন্সটাফরেক্স হচ্ছে অল্পকয়েকটি কোম্পানির মধ্যে একটি যা দীর্ঘ এবং স্বল্প পজিশন প্রস্তাব করছে যার ১ লট $১০,০০০ এর সমান। তাই কোন ট্রেডের সর্বনিন্ম পরিমান $১০০। ১:১০০ লিভারেজ থাকলে ব্যবসায়ী $১ থেকে শুরু করে যেকোন পরিমান অর্থ জমা করতে পারবে। এক্ষেত্রে, মূল্য ১ টিক পরিবর্তন হলে জমা অর্থে ১ সেন্ট পরিবর্তন হয়।

কোম্পানির গ্রাহকগণ সেন্ট অ্যাকাউন্টে মার্কিন ডলার এবং ইউরো এর ব্যবসা করতে পারে। এ ধরণের অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে আরও জানতে দয়াকরে ট্রেডিং অ্যাকাউন্টের ধরণ শাখায় পরিদর্শন করুন।

ইন্সটাফরেক্স পরামর্শ:
লিভারেজ ফরেক্সকে উচ্চ-ঝুঁকির মার্কেটে পরিণত করে। তাই একজন নবাগত ব্যবসায়ীর প্রাথমিক আমানত তার দু'সপ্তাহের আয়ের বেশি হওয়া উচিত হয়। ধার করা অর্থ, পেনশনের অর্থ, শিক্ষা অথবা বাসস্থানের খরচ দিয়ে ব্যবসা না করার জন্য সুপারিশ করা হচ্ছে। বড় পরিমানের পজিশন খোলার আগে একজন নবাগত ব্যবসায়ীকে ডেমো অ্যাকাউন্ট অথবা সেন্ট অ্যাকাউন্টে প্রশিক্ষণ নেওয়া উচিত। অভিজ্ঞতা ক্ষতির ঝুঁকি হ্রাস করে।

প্রবন্ধ তালিকায় ফিরুন
একটি অ্যাকাউন্ট খুলুন
একটি অ্যাকাউন্ট খুলুন
ডিপোজিট করুন
ডিপোজিট করুন
এখন কথা বলতে পারবেন না?
আপনার প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করুন চ্যাট.