Support service
×

অধ্যায় ১৯ - জর্জ সোরোস: কিংবদন্তি বিনিয়োগকারীর সাফল্যগাথা

জীবনের অন্যান্য যে কোনো ক্ষেত্রের মতো, ফরেক্সেও অসাধরণ ব্যক্তিরা রয়েছেন, যাদের নাম ইতিহাসে উজ্জ্বল হয়ে থাকবেজর্জ সোরোস ফরেক্স ইতিহাসের সবচেয়ে সফল ব্যবসায়ীদের একজন। ১৯৬৯ সালে কুরাকাওতে (ক্যারিবিয়ান সাগরে নেদারল্যান্ডস অ্যান্টিলস এ এর অবস্থান) কোয়ান্টাম ফান্ড প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে তার কর্মজীবন শুরু হয়। তার জীবদ্দশায়, কোয়ান্টাম ফান্ড ফরেক্সে প্রচুর দূরদর্শী এবং লাভজনক ব্যাবসা পরিচালনা করেছে। উদাহরণস্বরূপ, স্পট মার্কেটে শুধুমাত্র ১৯৯৬ সালে, তহবিলটি ম্যাকডোনাল্ডস কর্পোরেশনের বার্ষিক আয়ের সমান মুনাফা করেছে। যাইহোক, জর্জ সোরোসের সবচেয়ে বিখ্যাত চুক্তিটি হল ১৯৯২ সালে অনুষ্ঠিত পাউন্ড স্টার্লিং বাণিজ্য। যার ফলে, তিনি এক মাসের মধ্যে ২ বিলিয়ন ডলার নিট মুনাফা অর্জন করেন। এই অসামান্য সাফল্য ও এর পেছনের গল্পের জন্য জর্জ সোরোস “ব্যাংক অফ ইংল্যান্ড পতনের নায়ক" হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেছিলেন।

 

৯০-এর দশকে বিশ্বের অর্থনৈতিক পরিস্থিতির ব্যাপক পরিবর্তনের জন্য জর্জ সোরোসের এমন  বিস্ময়কর সাফল্য অনেক খানি দায়ী১৯৭৯ সালে, জার্মানি এবং ফ্রান্স ইউরোপীয়ান মনিটারি সিস্টেম (EMS) প্রতিষ্ঠার সূচনা করে। এই ব্যবস্থায় অংশগ্রহণকারী দেশগুলির জাতীয় মুদ্রার হারের স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে এবং মুদ্রা একীকরণের প্রস্তুতি হিসেবে EMS তৈরি করা হয়েছিল। EMS মূলত জার্মানি, ফ্রান্স, ইতালি, নেদারল্যান্ডস, বেলজিয়াম, ডেনমার্ক, আয়ারল্যান্ড এবং লুক্সেমবার্গ নিয়ে গঠিত। ইউরোপীয় মুদ্রার একক বা ইউরোপিয়ান কারেন্সি ইউনিট (ECU) এর প্রবর্তনের উপর ভিত্তি করে মুদ্রার হার নিয়ন্ত্রণের প্রক্রিয়া গড়ে উঠেছিল যা ছিল সমসাময়িক ইউরো (EUR) এর একটি নমুনা নিয়ন্ত্রণ প্রক্রিয়াটি ইউরোপীয়ান এক্সচেঞ্জ রেট মেকানিজম (ERM) নামে পরিচিত এবং যেটি ছিল EMS এর মূল ভিত্তিএর উদ্দেশ্য ছিল কেন্দ্রীভূত হার বনাম ECU প্রতিষ্ঠা করা। এছাড়াও, প্রতিটি EMS সদস্যের জন্য মুদ্রার হারের সীমা (একটি করিডোর) নির্দিষ্ট করা হয়েছিল যার মধ্যে একটি মুদ্রার বিনিময় হারের সর্বোচ্চ/সর্বনিম্ন সীমা অনুমোদিত ছিল চুক্তির শর্তানুযায়ী অংশগ্রহণকারী দেশগুলো যে কোনো মূল্যে তাদের জাতীয় মুদ্রার হার বজায় রাখতে বা সিস্টেম ছেড়ে যেতে বাধ্য ছিল। চুক্তির শর্ত্তনুসারে, EMS অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর কেন্দ্রীভূত হার পরিবর্তন করা যেতে পারে। ১৯৭৯ থেকে ১৯৮৭ পর্যন্ত ৯ বার এরকম পরিবর্তন ঘটেছে।

 

১৯৯০ সালে, গ্রেট ব্রিটেন EMS-এ যোগদান করে এবং ব্রিটিশ পাউন্ডের (GBP) বিনিময় হার ওঠা-নামার সীমা ±% ধরে ২.৯৫ ডয়েচে মার্ক (DEM) নির্ধারণ করা হয়েছিল। ১৯৯২ সালের মাঝামাঝি সময়ে, ERM-এর জন্য, EMS-এ অংশগ্রহণকারী ইউরোপীয় দেশগুলিতে মুদ্রাস্ফীতির হার উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছিলতা সত্ত্বেও, নির্ধারিত সীমার মধ্যে মুদ্রার হারের কৃত্রিম রক্ষণাবেক্ষণ বিনিয়োগকারীদের মধ্যে সন্দেহ জাগিয়েছিল১৯৮৯ সালে পশ্চিম এবং পূর্ব জার্মানির একত্রীকরণের পর পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়ে যায়। পূর্ব জার্মানির অর্থনীতির দুর্বলতার কারণে সরকারী ব্যয়ের বিশাল সম্প্রসারণ ঘটে যা বুন্দেসব্যাংক কে আরও অর্থ প্রদান করতে বাধ্য করে। এই নীতি উচ্চ মুদ্রাস্ফীতির দিকে পরিচালিত করে, এবং বুন্দেসব্যাংক মূল সুদের হার বাড়িয়ে দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। উচ্চ সুদের হার প্রচুর বিদেশী বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করেএর ফলে, ডয়েচে মার্কের জন্য জোরালো চাহিদার সৃষ্টি হয় যা এর মূল্য বৃদ্ধিতে সহায়তা করে অন্যদিকে EMS চুক্তির দ্বারা আবদ্ধ গ্রেট ব্রিটেন, ডয়েচে মার্কের বিপরীতে মুদ্রা করিডোরের নির্দিষ্ট সীমার মধ্যে তার জাতীয় মুদ্রার হার বজায় রাখতে বাধ্য হয়সে সময় ব্রিটিশ অর্থনীতি চরম সংকটে পড়েছিলযুক্তরাজ্যে বেকারত্বের হার বাড়ছিলব্যাঙ্ক অফ ইংল্যান্ড তখন জার্মানির বুন্দেসব্যাংক এর অনুসরনে সুদের হার বাড়ানোর সাহস করেনি কারণ এই পদক্ষেপটি পরিস্থিতিকে আরও খারাপ করতে পারতকিন্তু নিকটবর্তী মেয়াদে দেশীয় মুদ্রার হারকে শক্তিশালী করার অন্য কোনো সম্ভাবনাও ছিল না। সেই সময়ে, জর্জ সোরোস এবং অন্যান্য অনেক বিনিয়োগকারী বুঝতে পেরেছিলেন যে যুক্তরাজ্য দেশীয় মুদ্রার হার প্রয়োজনীয় স্তরে বজায় রাখতে সক্ষম হবে না এবং হয় তাদের কে মূদ্রার অবমূল্যায়ন ঘোষণা করতে হবে অথবা ERM থেকে নিজেদের কে প্রত্যাহার করতে হবে।

 

জর্জ সোরোস পাউন্ড (GBP) ধার করে তা ডয়েচে মার্কস (DEM) এর বিপরীতে বিক্রি করার এবং জার্মান সম্পদে বিনিয়োগ করার সিদ্ধান্ত নেন৷ এর ফলে,  সেই সময়ে প্রায় ১০ বিলিয়ন পাউন্ডস (GBP) বিক্রি হয়েছিল। শুধু জর্জ সোরোস একাই এমনটা ভাবেন নি, অনেক বিনিয়োগকারীই তার উদাহরণ অনুসরণ করেছিলেন।

 

এ ধরনের দূরদর্শীতার ফলে যুক্তরাজ্যের অস্থিতিশীল অর্থনৈতিক পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়ে যায়পরিস্থিতি ঠিক করার এবং মুদ্রার হার বাড়ানোর প্রয়াসে, ব্যাংক অফ ইংল্যান্ড তার রিজার্ভের জন্য প্রায় ১৫ বিলিয়ন পাউন্ড (GBP) পুনঃক্রয় করেকিন্তু তাতেও প্রত্যাশিত লক্ষ্য অর্জন হয় না। তারপরে ১৬ সেপ্টেম্বর, ১৯৯২-, যাকে পরবর্তীতে "কালো বুধবার" বলে অভিহিত করা হয়, ব্যাংক অফ ইংল্যান্ড ঘোষণা করে যে এটি সুদের হার ১০% থেকে ১২% এ উন্নীত করেছে। নিয়ন্ত্রক সংস্থা অশান্ত পরিস্থিতি শান্ত করতে চাইলেও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তাদের প্রত্যাশা তাতে পূরণ হয়নি।

 

অপরদিকে সেইসব বিনিয়োগকারীরা, যারা পাউন্ড বিক্রি করেছিল, তারা নিশ্চিত ছিল যে পাউন্ড তার মূল্য আরও হারাবে এবং বিনবিয়োগকারীরা বিশাল মুনাফা অর্জন করবে। কয়েক ঘন্টা পরে, ব্যাংক অফ ইংল্যান্ড তার সুদের হার ১৫% বাড়ানোর দাবি করে, কিন্তু ব্যবসায়ীরা পাউন্ড বিক্রি করতেই থাকে। এটি সেদিনের ১৯:০০ টা পর্যন্ত অব্যাহত ছিল। পরবর্তীতে ট্রেজারির মুখ্য সচিব নর্মান ল্যামন্ট ঘোষণা করেন যে গ্রেট ব্রিটেন ইউরোপীয় বিনিময় হার ব্যবস্থা (ERM) ত্যাগ করেছে এবং সুদের হার কমিয়ে ১০% করেছে। সেই দিন থেকে পাউন্ডের হার চরম পর্যায়ে নেমে যায় এটি ডয়েচমার্কের তুলনায় ১৫% এবং ৫ সপ্তাহের মধ্যে মার্কিন ডলারের বিপরীতে ২৫% হ্রাস পায়এটি কোয়ান্টাম ফান্ডে একটি বিশাল অংকের মুনাফা নিয়ে আসেমাত্র এক মাসের মধ্যে, জর্জ সোরোস জার্মান সম্পদের জন্য উল্লেখযোগ্যভাবে সস্তা পাউন্ড কিনে প্রায় ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মুনাফা অর্জন করেনউল্লেখ্য যে, ১৯৯২ সালের সেপ্টেম্বরে, পাউন্ড প্রায় ৩,০০০ পিপস কমে গিয়েছিল!

 

এইভাবে, জর্জ সোরোস, “ব্যাংক অফ ইংল্যান্ড পতনের নায়ক" দেখিয়েছেন কৃত্রিমভাবে মুদ্রার হার রক্ষা করা কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলি বড় বিনিয়োগকারীদের মুদ্রা অনুমানের কাছে কতটা দুর্বল হতে পারে। ধার করা অর্থ জর্জ সোরোসকে মাত্র কয়েক সপ্তাহের মধ্যে বিপুল পরিমাণ সম্পদের মালিক বানিয়ে দেয়, যা তার দাতব্য কাজের দিগন্ত খুলে দেয়। দেশের অর্থনীতিতে মুদ্রা অনুমানের নেতিবাচক প্রভাব রোধ করতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো বৈদেশিক সম্পদের রিজার্ভ তৈরি করে। কিন্তু বাস্তবতা দেখিয়েছে বিনিয়োগকারীদের ব্যাপক মূলধনের বিপরীতে এই ধরনের রিজার্ভ অকার্যকর হতে পারে, যদি তাদেরও একই লক্ষ্য থাকে।

 

বর্তমানে ফরেক্স ৯০ এর দশকের শুরুর তুলনায় অনেক বেশি তরল। এখন, এমনকি এক বিলিয়ন পুঁজিধারী কোনো বিনিয়োগকারী, দীর্ঘ সময়ের জন্য কোনো মুদ্রার হারকে প্রভাবিত করতে সক্ষম হবে না। ১৯৯২ সালের সেপ্টেম্বরের "কালো বুধবার" অতীত হয়ে গিয়েছে, তবে ঐতিহাসিক ঘটনাগুলিকে অবহেলা করা উচিত নয়, কারণ ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি হয়


আপনার মতামত প্রদান করুন

ধন্যবাদ! আপনি কি আরও কিছু যোগ করতে চান?

প্রাপ্ত উত্তর আপনি কিভাবে মূল্যায়ন করবেন?

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন (ঐচ্ছিক)

আপনার মতামত আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ.
আমাদের অনলাইন সমীক্ষা সম্পূর্ণ করার সময় দেওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ৷

smile""