একটা মুদ্রা বনাম আরেকটি মুদা ক্রমাগত পরিবর্তন হতে থাকে ( বৃদ্ধি অথবা হ্রাস)। উদাহারন সরূপ, আমরা যদি বলি ডলারের মান কমছে, সেটা বোধগম্য হবে না, যেমন মার্কিন ডলারের বৃদ্ধি পেতে পারে অস্ট্রেলীয় ডলার বিপক্ষে এবং ইউরোর বিপক্ষে পতন ঘটতে পারে। মুদ্রা সবসময় জোড়া আকারে লেনদেন করা হয়। মুদ্রাসমূহ সবসময় একটার বিপক্ষে আরেকটা কোড করা হয়, মুদ্রাগুলোর নাম একটা স্লাশ(/) দ্বারা ভাগ করা হয় নিম্নলিখিত উপায়ে: EUR /USD।


মূল্যের হারের সাথে সঙ্গতি রেখে মুদ্রা জোড়াগুলো জোড়া গঠন করে। উদাহারন সরূপ, EUR /USD জোড়ার মূল্য প্রদর্শন করবে আপনি ১ ইউরোতে কত ডলার কিনতে পারবেন। জোড়ার প্রথম মুদ্রা হল বেজ মুদ্রা এবং দ্বিতীয়টি হল কোট মুদ্রা। ইউরো হল বিশ্বের অন্যান্য প্রধান মুদ্রাগুলোর বেজ মুদ্রা। নিচে বেজ মুদ্রা জোড়াগুলো দেওয়া হল:


প্রতীক নাম কথ্য ভাষার শব্দবন্ধ
EUR/USD EUR, USD Dollar EUR
USD/JPY USD Dollar, yen yen
GBP /USD Pound, Dollar Sterling or Cable
USD /CHF USD Dollar, Frenc Swissy
AUD /USD Australian Dollar , USD Dollar Aussie
USD /CAD USD Dollar, Canadian dollar Loonie
NZD /USD New Zealand dollar, US dollar Kiwi

প্রধান মুদ্রাজোড়াগুলো, যাদের জন্য ফরেক্স মার্কেটের লেনদেনের প্রায় ৭৫% সম্পন্ন হয়, EUR/USD, GBP/USD, USD/CHF ও USD/JPY: EUR/USD, GBP /USD, USD /CHF এবং USD/JPY। যদি একটা মুদ্রা জোড়া US ডলার দিয়ে গঠিত হয়, তাহলে জোড়াটিকে প্রদান জোড়া হিসবে ধরা হয়। জোড়া যা মার্কিন ডলার দিয়ে শুরু হয় না সেগুলোকে বলা হয় ক্রস মুদ্রা জোড়া, অথবা ক্রস রেট। নিম্নলিখিত ক্রস রেটগুলো কার্যকরভাবে লেনদেন করা হয়:


প্রতীক নাম
EUR /CHF EUR-franc
EUR/GBP EUR-sterling
EUR /JPY EUR-yen
GBP/JPY sterling-yen
AUD/JPY aussie-yen
NZD/JPY kiwi-yen



GBP/USD।
কালো বুধবার ১৯৯২
GBP/USD।
কালো বুধবার ১৯৯২
কারেন্সি পেয়ারগুলোর ইতিহাসে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ঘটনা দেখা যাক।
ফরেক্স মার্কেটের ইতিহাসে সবচেয়ে চমৎকার ওঠানামা হয়েছিল সেপ্টেম্বর ১৬, শরৎকাল ১৯৯২ সালে ব্রিটিশ পাউন্ডে। ওইদিন কালো বুধবার নামে পরিচিত কারন ওইদিন ব্রিটিশদের সবচেয়ে বড় পতন হয়েছিল। এটি সবচেয়ে বেশি দেখা গেছে GBP/DEM এবং GBP/USD কারেন্সি পেয়ারে।
১৯৯২ সালের নভেম্বর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত মার্কিন ডলারের বিপক্ষে ব্রিটিশ পাউন্ডের মূল্য হ্রাস পায় 25% হয়( 2.01 থেকে 1.51 পর্যন্ত GBP/USD)।

এইভাবে, চলুন আমরা আলোচনা করি মুদ্রাজোড়াগুলোর ইতিহাসের স্বতন্ত্র ঘটনাসমূহ।

ফরেক্স মার্কেট ইতিহাসে একটা অন্যতম স্মরণীয় ঘটনা দেখা গিয়েছিল সেপ্টেম্বর ১৬ তারিখে, শরৎকাল ১৯৯২ সালে, ব্রিটিশ পাউন্ডের মাধ্যমে। পরে, এই দিনকে বলা হত "কালো বুধবার", যখন ব্রিটিশ মুদ্রার অতিরিক্ত পতন নিদিষ্ট হয়েছিলো। এটি আরও নাটকীয়ভাবে নিজেকে উদ্ভাসিত করেছিলো GBP/DEM (পাউন্ড-ডয়চে মার্ক) এবং GBP/USD( পাউন্ড/মার্কিন ডলার) মুদ্রা জোড়াসমুহে।

মার্কিন ডলারের বিপক্ষে ব্রিটিশ পাউন্ডের পতন হয়েছিলো নভেম্বর থেকে ডিসেম্বর ১৯৯২ সালে যার মোট পরিমান ছিল ২৫% (২.০১ থেকে ১.৫১ GBP/USD)

এই "স্টারলিং সংকট" এর সাধারন কারন নিদিষ্ট মুদ্রার ইউরোপের মুদ্রা ব্যবস্থায় স্থায়ীভাবে গ্রেট ব্রিটেইন মুদ্রার অংশগ্রহন; সম্প্রতি পাস হওয়া সংসদীয় নির্বাচনে;শিল্পের ফলাফল হ্রাস পায়;দ্যা ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের প্রচেষ্টা ছিল ডয়চে মার্কের সমতা হার বজায় রাখা, সেই সাথে বিনিয়োগকারীদের নাটকীয় বহিঃপ্রকাশ। একই সময়ে, লাভজনক ঢালের কারনে জার্মান মুদ্রা ইংলিশ মুদ্রার চেয়ে বেশি আকর্ষণীয় হয়েছিলো। সর্বেসর্বা, পুঁজিবাদীরা ডয়চে মার্কস এবং মার্কিন ডলারের জন্য পাউন্ড বিক্রয়ের দিকে ঝুঁকে পরেছিল।ঘটনা ক্রমে মুদ্রার সঙ্কট হয়েছিলো উল্লেখিত কারনে:উচ্চ সুদের হার বৃদ্ধি ১০% থেকে ১৫% পর্যন্ত, ব্রিটিশ সরকার পাউন্ডের এই অবমূল্যায়ন গ্রহন করেছিলো এবং ইউরোপিয়ান অর্থ ব্যবস্থা থেকে অপসারিত হয়েছিলো।ফলে, পাউন্ড পুনরায় ফ্লটিং এক্সচেঞ্জ রেটে ফিরে আসে।

আরেকটি চক্রান্তমূলক মুদা জোড়া হল মার্কিন ডলার -ইয়েন(USD/JPY)।সবচেয়ে লেনদেনকৃত মুদ্রার তালিকায় EUR/USD এবং GBP/USD পরে ডলার-ইয়েন মুদ্রা জোড়া তৃতীয় অবস্থানে আছে।এশিয়ার অধিবেশনে সবচেয়ে কার্যকর ভাবে এটা লেনদেন করা হয়।এই জোড়ার গতি সাধারনত মসৃণ ; USD/JPY জোড়া আর্থিক বাজারের উচ্চ ঝুঁকিতে দ্রুত প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে।৮০ সালের মাঝামাঝি থেকে yen এর রেটিং কার্যকরভাবে ডলারের বিপক্ষে বৃদ্ধি পেতে শুরু করে। ৯০ সালের শুরুর দিকে জাপানে প্রাণবন্ত অর্থনৈতিক উন্নয়ন স্থির হয়ে গিয়েছিল, বেকারত্ব বৃদ্ধি পেয়েছিল; আয় এবং বেতন নিচে নেমে গিয়েছিল সেই সাথে দেশটির জীবন যাত্রার মান।

এবং ১৯৯১ সালের শুরুর দিকে, জাপানের বহু সংখ্যাক আর্থিক প্রতিষ্ঠান ঋণপরিশোধে অক্ষম হয়েছিলো। টাকিও স্টক এক্সচেঞ্জ এর মূল্য উদ্ধৃতির পতন ঘটেছিল, yen এর অবমূল্যায়ন হয়েছিলো, তারপরে, প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলি ঋণপরিশোধে অক্ষম হতে শুরু করেছিলো।১৯৯৫ সালে USD/JPY জোড়ার ঐতিহাসিক কম রেট রেকর্ড করা হয়েছিল -৭৯.৮০।

১৯৯৭-১৯৯৮ সালে শুরু হওয়া এশিয়ান মন্দা yen এর পতনের দিকে ধাবিত করেছিল। এর ফলে yen-US ডলার জোড়ার বিপর্যয় হয়েছিলো এক মার্কিন ডলার এর ক্ষেত্রে প্রতি yen ১১৫ থেকে বেড়ে ১৫০ হয়েছিলো।

বিশ্ব অর্থনৈতিক সঙ্কট মানুষের কার্যকলাপের প্রায় সব ক্ষেত্রে স্পর্শ করেছিল ।ফরেক্স মুদ্রা বাজারও এর ব্যতিক্রম ছিল না। যদিও, ফরেক্সে অংশগ্রহণকারীরা(কেন্দ্রীয় ব্যাংক, বাণিজ্যিক ব্যাংক, বিনিয়োগ ব্যাংক, ব্রোকার ও বিক্রেতা, পেনশন ফান্ড, বীমা কোম্পানি এবং ট্রান্সন্যাশনাল কোম্পানি)সঙ্কটপূর্ণ অবস্থায় ছিল, ফরেক্স মার্কেট সফলভাবে কার্যক্রম চালিয়েছে, এটা স্থিতিশীল এবং লাভজনক যা আগে কখনও ছিল না।

আর্থিক সংকট বিশ্বের মুদ্রার মান কঠোর পরিবর্তনের দিকে ধাবিত করে।সঙ্কটের সময়ে, অন্যান্য মুদ্রার বিপরীতে yen সবচেয়ে শক্তিশালী হয়েছিলো।মার্কিন ডলারও না ইউরোও না, yen ট্রেডারদের জন্য সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য মুদ্রা উপাদান হিসেবে প্রমানিত হয়েছিলো। এই ধরনের শক্তিশালী হওয়ার অন্যতম কারন হতে পারে যে ব্যবসায়ীদের প্রয়োজন আর্থিক বিশৃঙ্খলার অভান্তরে একটি নির্ভরযোগ্য স্থান।অন্যান্য বিশেষজ্ঞরা ব্যাখ্যা করেছে yen এর হারের ঊর্ধ্ব গতি ক্যারি ট্রেড চুক্তি প্রত্যাখ্যানের দ্বারা হয়েছে।সুতরাং, নিচে প্রধান yen জোড়া সমূহের মুদ্রার পরিবর্তন দেওয়া আছে।



USD/JPY.
1997 এশিয়ান আর্থিক সংকট
USD/JPY.
1997 এশিয়ান আর্থিক সংকট
আরেকটি চমৎকার কারেন্সি পেয়ার হলো মার্কিন ডলার বনাম জাপানি ইয়েন(USD/JPY)। EUR/USD এবং GBP/USD এরপর সবচেয়ে বেশি ট্রেড করা কারেন্সি পেয়ারের মধ্যে মার্কিন ডলার এবং জাপানি ইয়েন তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। এশিয়ান অধিবেশনের সময় এটি সবচেয়ে কার্যকরভাবে ট্রেড হয়। এই কারেন্সি পেয়ারের গতিবিধি খুবই সুদর, আর্থিক মার্কেট কোন ঝুঁকির সম্মুখীন হলে USD/JPYপেয়ার দ্রুত প্রতিক্রিয়া দেখায়।

আশির দশকের মাঝামাঝি মার্কিন ডলারের বিপক্ষে ইয়েন এর রেটিং বৃদ্ধি পেতে শুরু করে। নব্বই দশকের শেষের দিকে জাপানের অর্থনৈতিক অবস্থা স্থির অবস্থায় থাকে, বেকারত্ব বৃদ্ধি পায়, আয় এবং ব্যয় হ্রাস পায়, সেইসাথে দেশের জনগণের জীবনযাত্রার মানের অবনতি ঘটে।

এবং ১৯৯১ সালের শুরু থেকে, এই অর্থনৈতিক অবস্থা জাপানের বহুসংখ্যক আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে দেউলিয়া করে। এর ফলে, টোকিও স্টক এক্সচেঞ্জ এর কোট এর পতন ঘটে, ইয়েন এর মূল্যের হ্রাস ঘটে, উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো মধ্যে দেউলিয়ার প্রবণতা দেখ যায়। ১৯৯৫ সালে USD/JPY পেয়ারের সবচেয়ে কম মান রেকর্ড করার হয় -79.80।

এটি শুরু হয় 1997-1998 এশিয়ান মন্দা অবস্থায় ইয়েন এর পতন ঘটে। এর ফলে ইয়েন-মার্কিন ডলার পেয়ারের পতন ঘটায় প্রতি প্রতি এক ডলার 115 ইয়েন থেকে বৃদ্ধি পেয়ে 150 হয়।

বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সঙ্কট মানুষের প্রায় সকল কার্যক্রমে প্রভাব ফেলছিল। ফরেক্স মার্কেটও এর ব্যতিক্রম নয়। যদিও ফরেক্সের অংশগ্রহণকারীরা (কেন্দ্রীয় ব্যাংক, বাণিজ্যিক ব্যাংক, বিনিয়োগ ব্যাংক, ব্রোকার এবং ডিলার, পেনশন ফান্ড, ইনস্যুরেন্স কোম্পানি এবং আন্তর্জাতিক সংস্থা) অনেক খারাপ অবস্থায় ছিল কিন্তু ফরেক্স মার্কেট সবসময় সফলভাবে কার্যক্রম চালিয়ে গেছে, এই মার্কেট পূর্বে কখনো এতটা স্থির এবং লাভজনক ছিল না।

আর্থিক সংকট বৈশ্বিক মুদ্রার মানগুলির পরিবর্তন ঘটায়। এই মন্দার সময়ে, ইয়েন প্রায় সকল কারেন্সির বিপক্ষে শক্তিশালী ছিল। মার্কিন ডলার বা ইউরো এতটা নির্ভরযোগ্য ছিল না, কিন্তু ইয়েন ট্রেডারদের কাছে নির্ভরযোগ্য কারেন্সি উপকরণ হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে। এই ধরনের শক্তিশালী অবস্থানের কারণ আর্থিক বিশৃঙ্খলার মধ্যে ট্রেডারেরা শৃঙ্খলার সন্ধান করছিল। অন্যান্য বিশেষজ্ঞগণ মনে করেন অধিক ট্রেড না হওয়ার কারণে ইয়েন এর মূল্য বৃদ্ধি পায়। নিয়ে প্রধান ইয়েন পেয়ারের কারেন্সির পরিবর্তন দেওয়া হলো।


মুদ্রা জোড়া সঙ্কটের আগের মুল্য (০৮/২০০৮) সঙ্কটের পরের মূল্য (০১/২০১০) পরিবর্তন %
USD /JPY ১১০.৩৮ ৮৯.৯৭ -১৮.৫
GBP/JPY ২১৩.৫০ ১৪২.৭৯ -৩৩.২২
EUR/JPY ১৬৮.৪৮ ১২২.১৬ -২৭.৫

উপরের টেবিল থেকে আমরা দেখতে পাই যে yen, US ডলার এর বিপক্ষে ১৮%, ইউরোর বিপক্ষে-২৭.৫%, পাউন্ডের বিপক্ষে -৩৩% অতিরিক্ত যোগ করেছে। শক্তিশালী মুদ্রা জোড়াগুলোর মধ্যে মার্কিন ডলার চতুর্থ অবস্থানে আছে।এটা অদ্ভুত দেখা যেতে পারে যে, পৃথিবীর মধ্যে এখন সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য মুদ্রা হল মার্কিন ডলার, নির্বিশেষে অর্থনৈতিক মন্দা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বাড়ছে, দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার পতনের ফলে, পলসনের অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার পরিকল্পনা অনুযায়ী ৭৫০ বিলিয়ন ডলার খরচ এবং বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ ক্রমাগত বৃদ্ধি কয়েক ডজন বিলিয়ন পরিমান USD ডলারের পরিমান হয়েছে।বিনিয়গকারিরা এখনও এটার উপরই নির্ভর করে।নিচে গ্রিনব্যাক এর বিপক্ষে মুদ্রার হারের পরিবর্তন এর তালিকা দেওয়া আছে।


মুদ্রা জোড়া সঙ্কটের আগের মুল্য (০৮/২০০৮) সঙ্কটের পরের মূল্য (০১/২০১০) পরিবর্তন %
EUR/USD ১.৫৬১৯ ১.৪৩২৮ -৮.৩
USD/CHF ১.০৮২০ ১.০৫৫৫ -২.৫
GBP /USD ১.৯৭৭৪ ১.৫৯৯০ -১৯.২

উপরোক্ত তথ্য থেকে দেখা যায় যে মার্কিন ডলার ইউরোর বিপক্ষে ৮.৩% এবং পাউন্ডের বিপক্ষে ১৯.২% লাভ করেছে। তুলনামূলকভাবে, ইয়েন এবং ফ্রাঞ্চ এর পতন নিশ্চিত ছিল। প্রথম ক্ষেত্রে ছিল ১৮.৫% এবং দ্বিতীয় ক্ষেত্রে ছিল -২.৫%।

শক্তিশালী মুদ্রাগুলোর মধ্যে ইউরো ১২ তম অবস্থানে আছে।নেতিবাচক বিষয়গুলি ছিল: জিডিপি এর হ্রাস এবং বৃহত্তম ইউরোপিয়ান অঞ্চলের দেশগুলোর উৎপাদন(জার্মানি, ফ্রান্স এবং ইতালি), ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অর্থনৈতিক মন্দার আশঙ্কা, উৎপাদনের মাত্রা হ্রাসের প্রতিবেদন, মুদ্রাস্ফীতি এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যদের প্রচুর বৈদেশিক ঋণ, বিশেষ করে পর্তুগাল, আয়ারল্যান্ড, স্পেন ও গ্রীস।পরে, ইউরো অঞ্চল থেকে এটির বিচ্ছিন্নতাবাদের হুমকি আসে।বিনিয়োগকারীদের প্রত্যাখ্যান ইউরোর পতন প্ররোচিত করেছিলো, এই মুদ্রা থেকে নিরাপদ মুদ্রাগুলো পছন্দ করা হয়(মার্কিন ডলার এবং ইয়েন)। ইউরোর বিপক্ষে মুদ্রার হারের পরিবর্তনের টেবিল নিচে দেওয়া হল:


মুদ্রা জোড়া সঙ্কটের আগের মুল্য (০৮/২০০৮) সঙ্কটের পরের মূল্য (০১/২০১০) পরিবর্তন %
EUR/CHF ১.৬৩৫২ ১.৪৭৪৭ -৮.৮
EUR /GBP ০.৭৯০০ ০.৮৯৯১ ১৩.৮
EUR /AUD ১.৬৯৭৪ ১.৫৬৫৮ -৭.৭

আর্থিক সঙ্কটের সময়ে ইউরো উল্লেখিত প্রধান মুদ্রাগুলোর তুলনায় দুর্বল হয়ে গিয়েছিল : মার্কিন ডলার - ৮.৩%, ইয়েন - ২৭.৫%, ফ্রান্স -৮.৮% এবং ওজি- ৭.৭% ।উল্লেখিত সমস্ত বিষয় থেকে ,আমরা বলতে পারি যে ফরেক্স মার্কেট, বিভিন্ন স্টক এবং অন্যান্য ব্যবসায়িক কার্যক্রম বিশ্ব অর্থনৈতিক সঙ্কটের কারনে লোকসান করেনি ,পক্ষান্তরে, এটা অত্যান্ত লাভজনক ছিল।

মুদ্রা বাজারের অনেক অংশগ্রহণকারীরা লাভবান হয়েছিলো, তাদের সঙ্কট সময়ের উৎপাদন হার অবিশ্বাস্য হয়েছিলো।এই ধরনের পরিস্থিতিতে, অনেক মানুষকে ফরেক্সে থেকে পলায়ন করতে দেখা যায়। চীন দেশের একটি প্রবাদ ছিল: একটা সঙ্কট অর্থনৈতিক এবং সামাজিক উদ্বেগকেই আলিঙ্গন করে না, পাশাপাশি সেটাই উপযুক্ত সময় বিনিয়োগ এবং সমস্যাগুলো সমাধান করার।


প্রবন্ধের তালিকায় ফিরে আসুন
একটি অ্যাকাউন্ট খুলুন
একটি অ্যাকাউন্ট খুলুন
ডিপোজিট করুন
ডিপোজিট করুন
এখন কথা বলতে পারবেন না?
আপনার প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করুন চ্যাট.